Thursday, April 24, 2008

অনথকপা খেলতাম আহাৎ উবা ইয়া - ২

বৈষ্ণব অনার নুয়া লাইয়ো
আমার মানুর গাঙ কত’হার গাবুরাপুয়া-ইমাইন্দল-সৌ-বুজন এমতাগা ইসকনর “হরেকৃষ্ণ” আন্দোলনলো বিভুলা-কালভুলা আহান ইসি। কোন আত্মজিজ্ঞাসা বা আত্মোপলব্ধিত্ত না মানুর দেখাদেখি মিকুপর জনস্রোত আগৎ বাহিয়া এরে বাহুল অনাহান বিজ্ঞমানুয়ে মাতে পারতাই। আমার মানুরাঙ এচুদিন চলিয়া আহের, আমার আপাবপায় পালন করিয়া আহিতারা বৈষ্ণব ধারা অহান তাঙরাং মনমত নার; বিয়ান-মাদান ডাক-করতাল বারিয়া হরিবোল-হরিবোল নাকরলে যেমন বৈষ্ণব অনা না’র। গাঙে-গাঙে লেকিৎ-লেকিৎ গরে-গরে হরিনামর জোয়ারহান দেখিয়া অনেকগই খাঙ লাগিয়া আঙকরতারা, খাংদা এহান কিহান ইলহান, কলির জগাই-মাধাই নদীয়াত্ত তাল খেয়া এগদে আহ’পড়লাগাহান না কিহান? এচুদিন কিহান আমি নাবে বৈষ্ণব ইয়া আসিলাংহান? আমি এচুদিন যে বৈষ্ণব ধর্মহান পালন করিয়া আহরাং এহান অসম্পূর্ণ বৈষ্ণব ধর্মহান? মোর নব্য-ইসকনি মারুপ দুগ-আগ’র জীবনধারা বা চালচলন দেহিয়া বারো তাঙ’রাঙতো সৎসঙ্গ, সদাচার, সাত্ত্বিকাহার, ষড়বেগ-দমন, ১৬-মালা জপ এসাদে ব্যাপক তত্ত্বকথা হুনিয়া নুঙপাং অনা লাগের। ইসকনি বৈষ্ণব অতায় তেইপাঙ মানুয়ে হিজিতারা বাত নাখেইতারা বুলি, অনেকগই নিজর মালক্লকিয়ে-বনক্লকিয়ে বাত-হিজিয়াউ না’খেইতারা বুলিয়া হুন’রাং, বারো হুনিয়া আমি খুয়াকনা ইয়া খালকররাঙ, এসাদে জবরদস্ বৈষ্ণবউ আমারতা নুকুল’পড়লাগাহান? ইসকনে যেবাকা মাততারা ‘হরেকৃষ্ণ’ ওয়াহিএগো সলকরলেই হাবিতা লমর, অহাৎতে আমি উঙরাং - আমার ডাকুলা, ইসালপা, দোহার, রাসধারী, সূত্রধারী, বাসকউলির ভবিষ্যৎ খালকরিয়া। ‘হরেকৃষ্ণ’ ওয়াহিগই হাবিতা লমিলেতে আমার রাস, রাখুয়াল, পালা, বাসক, খুবাখুশৈ, হোলি, আরতির কাজে তাঙরে আর দরকার নাপড়তই। মিয়াঙর লগে নৌগ’ আগৎ কাহিতে গিয়া আপাবপার হাকতাকেত্ব পাসি আমার পাংকালপা রুহিবৃত্তি, কৃষ্টি বারো অসাম্প্রদায়িক ঐতিহ্যরে আজি মিমুত অনার পথে নিয়া যারাংগাহান না কিহান খালকরানি থক।

আমিতে মণিপুরী না হিন্দু ?
নিজর জাতহানলো গর্ববোধ করানি এহান সভ্যজগতর চলহান, আমারতাতে উল্টাহান ইসে। মিয়াঙ মালনার হৎনা করতেগা নিজর জাতহানরে পাতালে লামাদিয়া হিন্দু পরিচয়লো ডাঙর অনার প্রবনতা আহান এবাকা দেখরাং। ধর্মীয় পরিচয় অহানে জাতআহানরে গজে না তুলের বা তলে না’লামাদের। বাঙালী, অসমীয়া, ত্রিপুরাত্ত দরিয়া বাগানর লেবারউ হিন্দু, এহাত ডাঙর অনারতা কিত্তাউ নাদেখরাং। আমিতে ডাঙর অরাংতা আমার পুন্নিংয়ৌপা ঐতিহ্য, ঠার, লোকসাহিত্য, নাঙকাপা নাছা, বস্ত্রশিল্প বারো আমার ইশ্বরতুল্য পুর্বপুরুষর হংকরা সভ্যতা-কৃষ্টি-রুহিবৃত্তির পাংকালপা বারন অগ’লো। আমার কৃষ্টি, সংস্কৃতির কাকেইহার লেহে বৈষ্ণবধর্মর প্রভাব আমি অস্বীকার নাকররাং, বিশেষ করিয়া গৌড়ীয় সহজীয়া বৈষ্ণবধর্ম এহান এবাকা আমার নিংশাগর লগে তিল’পলগা। যে নৃত্যকলা, কীর্তন, রাস, রাখুয়ালনো আমি মুর তুলিয়া উবাইয়া আসি, হাবি কেন্দ্রীভুত ইসেতা বৈষ্ণব ধর্মত। আমি হাবিয়ে নিংকরিয়ারতা বৈষ্ণবধর্ম এহার প্রবক্তাগ’ চৈতন্য মহাপ্রভু। এহান ভুল ধারনাহান কিয়াবুল্লে, গৌড়ীয় ধারা উহান বাদেউ বৈষ্ণবধর্মরতা নানান মার্গ আসে যেমন নিমান্দি, রামান্দি ইত্যাদি। চৈতন্য মহাপ্রভুর জন্মর চারিহৌ বসর আগে নিম্বার্ক ঋষিয়ে নিমান্দি বৈষ্ণবমার্গ এহান লিংখাত করিয়া গেসেগা। কেশব কাশ্মীরি, কবি জয়দেব, চন্ডিদাস, বিদ্যাপতি গিরকগাসিয়ে নিমান্দি মার্গ এগ’ অনুসরন করেসিলা।১ এহান বাদে রাম-সীতারে আরাধনার অনুসারী রামান্দি বা রামাউতি বৈষ্ণবমার্গ আহানউ আসে যেহান শান্তিদাস গোস্বামী গিরকে মণিপুরে নিয়া গেসিলগা। মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যর লগে পঞ্চদশ শতাব্দীর শ্রীশংকরদেব, কবির, বল্লভাচার্য প্রমুখ গিরকগাসিরেউ বৈষ্ণব ধর্মর গুরু হিসাবে উচ্পা ফাম দেনা অর। বঙ্গ-গৌড়-পূন্ড্র-রাঢ় অঞ্চলে বিভিন্ন ধর্মর ক্রমবিবর্তনর ইতিহাস হৎতরলে উপ’না পাররাঙ, গৌড়ীয় বৈষ্ণবধর্ম সৃস্টি অসেতা বাংলার লৌকিক বিশ্বাস, বৌদ্ধ সহজীয়া, বৈষ্ণব সহজীয়া, বারো সুফি দর্শনর উপাদান সুমকরিয়া। শাস্ত্রর কঠোরতারে অগ্রাহ্য করিয়া যে উদারপন্থী বৈপ্লবিক প্রেমধর্ম আহান চৈতন্য মহাপ্রভূয়ে লিংখাত করেসিল, মহাপ্রভূ দৌঅনার পিসেদে নবদ্বীপ, শ্রীখন্ড, বেনারসর ‘এলিট’ বুদ্ধিজীবি শাস্ত্রকারর আতে পড়িয়া ঔহান বারো শাস্ত্রমুখী অ’পড়িসিলগা।২ মণিপুরর বৈষ্ণবধারা অহার লগে ঔ শাস্ত্রমুখী বা এলিট বৈষ্ণবধারার কোন সম্বন্ধ বিসারিয়া নাপারাঙ।
মণিপুরে ষোড়শ শতাব্দীত রাজা খগেম্বার হাক্তাকে, অষ্টাদশ শতাব্দীত গরীবনেওয়াজ পামহৈবার হাক্তাকে বারো এতার পিসে পিসেদে মহারাজ ভাগ্যচন্দ্র-চন্দ্রকীর্ত্তির হাক্তাকে - এসাদে ইতিহাসর নানান সমেইৎ নানান মার্গর ধর্মপ্রচারক হমাসিলাগা। হাদিমেরাকে মণিপুরী এতা বৌদ্ধদর্শনলোউ প্রভাবিত অসিলা যেহার প্রমান পারাঙতা আমার কার্ত্তিকর পালি বা নিয়মসেবাত্ত।৩ আরতাউ পিসেদে চেইলে পঞ্চবিষ্ণুপ্রিয়া আঙম-মৈরাঙ-খুমল-লুয়াঙ-মাঙাঙ’র তঙাল তঙাল লৌকিক আচার বারো ধর্মবিশ্বাসর বিষয়উহানউ মুঙে আয়া পড়েরগা। আঙম, মৈরাঙ, খুমল, লুয়াঙ, মাঙাঙ - এতা আমার আপাবপার লাম ইয়া থাইলেতে হিন্দুধর্মর লগে আমার কোন ঐতিহাসিক যুগসুত্র থানার কথাহান নাবে (মহাভারতে উল্লেখ থাইলেই জাগাআহান আর্য্যভুমি বারো জাগাঅহার মানু হিন্দু অনা লাগতই এমন কোন কথা নেই)। বাস্তব ত্রেতউ আমি দেখরাঙতা, বৈদিক যুগর চতুর্বর্ণভিত্তিক সমাজর লগে আমার গোষ্ঠী-শিংলুপ-লকেই-সাগেই ভিত্তিক সমাজর কোন মিল নেই। আমার আচার, চালচলন, ফুতিফানি, খাদ্যাভ্যাস, দৌ-দুকে বিশ্বাস ইত্যাদি চেইলে মেইনস্ট্রীম হিন্দুর লগে আমার ডাঙর পার্থক্যআহান আহিত পড়ের। বৈষ্ণবায়নর আগে আমার মানুর লৌকিক ধর্মহানলো এবাকাউ কোন গবেষনাকর্ম নাইসে থাংতে এসম্বন্ধে লেপ্পা কোন সিদ্ধান্তৎ উপ’না না’ররাং। কিন্তু আমার কৃষ্টির খইতুগ’ লেইসাঙ, লেইসাঙর লগে মালঠেপ, বার্তন বারো মালঠেপে বহানির লেইত্রেং, বাদ্যযন্ত্র যেমন ডাক, করতাল বারো এতার লগে অন্যান্য বিষয় যেমন কীর্ত্তনর রাগ, পদ্ধতি, নাছার মুদ্রা এতা হাবি কুপকরে খালকরলে লেপ’না লাগের আমার কলা-কৃষ্টি-সংস্কৃতি এতা হাবি গৌড়ীয় বৈষ্ণবধর্মর অবদান নাবে।৪ মনিপুরে থাইতে আমার মানুয়ে তঙাল তঙাল সময়ে শৈব, বিভিন্ন মার্গর বৈষ্ণব, বৌদ্ধ এতাহাবি দর্শনর উপাদান তাঙর লৌকিক দর্শনর লগে আত্তীকরন করেসি। আমার মানুর খাদ্যভ্যাস, প্রসাদ কাতকরানি, কীর্ত্তনর রীতি, তিলক পিদানির স্টাইলউ অন্যান্য বৈষ্ণব’রাংতো তঙাল। গতিকে ভাগবতগীতার ভক্তিমার্গরে যাবতীয় আচারর মুলগ’ ধরিয়া পালন করিয়া আহরাঙ ধর্মমত এহানরে গৌড়ীয় বৈষ্ণবধর্ম নাবুলিয়া এবাকা মণিপুরী বৈষ্ণবধর্ম (Manipuri Vaishnavism) বুলানি’ই চুম। হুত্তুমে ভারতবর্ষর অন্য ধর্মমতর লগে পান্তাম দিলে, আমার বৈষ্ণবধর্ম এহান- ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণেত্ত আরতাউ মার্জিত-পরিশীলিত, দার্শনিক দৃষ্টিকোণেত্ত আরতাউ লু বারো আধ্যাত্মিক বিচারে উচ্চতর স্তরর বুলানি য়াকরের।৫

ধবারে ফুতিসুপানি বাগাদেনা না’লাগের
আমার মানু বৈষ্ণব ইসিতা লামসাম তিনহৌ বসর অ’পলগা, ইসকন হঙিলতা আজিত্ত মাত্র দ্বিক্কুড়ি বসর আগে, ১৯৬৬ সালে। মুরখুড়িয়া শিক্কা লাল্লাম করিয়া পথেঘাটে, রেলষ্টেশনে, এয়ারপোর্টে লেইরিক-লেইসু বেসানি বারো মানুরাং ডোনেশন মাগানি (য়ুরোপ-আমেরিকাত এহান জবর) এহানই বৈষ্ণবধর্মহান বুললেতে ইসকন’ই আউপা বৈষ্ণবর ফেক্টরিগ’ শৈনেই। বেরা লাগেরতা আরাক জাগা আহাত। ইসকন’র বৈষ্ণবতত্ত্ব এবাকাউ মণিপুরী বৈষ্ণবধর্মর অসাদে দার্শনিক বারো আধ্যাত্মিক স্তরে কা’নারেসে, বরং দ্বিক্কুড়ি বসর ধরিয়া ইসকনর বৈষ্ণবতত্ত্ব মাছ-মাংস নাখানি, সন্তান-উৎপাদন ব্যতীত নারীসম্ভোগ নাকরানি, চা-সিগারেট নাপিনা, তাস-জুয়া নাখেলানি এসাদে গৌণ বৈদিক আচারর মাঝে চক্কর দিয়া থাইল।৬ এতাতে আমার মানু বহুআগে হারপিয়া হদাসিতা। আমার সামাজিক আচার-অনুষ্ঠান, পালাকীর্ত্তন, রাস, রাখুয়াল, আরতির পদগর লেহে, পারেঙহার লেহে পারাঙ রাধাভাবলো পরমাত্মাগর লগে তিলনার খৌরাঙ। তারো ইসকনে আমারে বৈষ্ণবতত্ত্ব শিা দেনা এহান ধবা’রে ফুতিসুপানি বাগাদেনাহান পারা অর। বৈষ্ণবদর্শন এহান আমার আপাবপায় কিসাদে নেসিলাগা, কিসাদে বৈষ্ণবর শান্ত, দাস্য, বাৎসল্য, সখ্য, মধুর- এসাদে ভাব-রূপ-রস এতা আমার আপাবপায় তাঙর কলা-সংস্কৃতিত আত্মীভূত করেসিলা বারো এসাদে করিয়া নুয়া চিন্তার বিপ্লবী দর্শন আহান ঔ সমেইৎ কিসাদে ডেভেলপ করেসিল- আমারতা আজি এতাহাবি হারপানি লাগতই। বেহুদা ধর্মীয় আবেগ আহানলো সাময়িক জনস্রোত আহাত বাহিয়া আমার আপাবপার হংকরা অসাম্প্রদায়িক ধর্মদর্শন বারো ঐতিহ্যর মারাগ’ত কদালর সেৎ নাদবাং।


তথ্য-নির্দেশ:
১. বাঙলা সাহিত্যের রূপরেখা, ১ম খন্ড, শ্রীগোপাল হালদার, কলিকাতা, ১৯৭০, পৃৃ. ৭০
২. সহজীয়া ও গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্ম, শ্রীপরিতোষ দাস, কলিকাতা, ১৯৭৮
৩. পাঞ্চজন্য অর্জ্জুনী, ৬ষ্ঠ সংকলন, শিলচর, ১৩৮১ বাংলা, পৃৃ. ৪
৪. আজিকার কথা, মথুরা সিংহ, শিলচর, ১৪০১ বাংলা, পৃ. ১৪
৫. Religion and Culture of Manipur by Dr. M. Kirti Singha, Imphal, 1988
৬. শ্রী শ্রী নামহট্ট দীপিকা, শ্রী কৃতকন্দর্প দাস, ইসকন ঢাকা, ৫০৯ গৌরাব্দ, পৃ. ১১


কলামিস্টঃ রসরাস শর্মা, বামুনটিলা।

No comments: